সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:১২ অপরাহ্ন
দুপচাঁচিয়ার আপডেট
তৃণমুল সম্মেলনই প্রমাণ করে বিএনপি গণতান্ত্রিক দল – সিরাজ এমপি দুপচাঁচিয়ায় মারামারি মামলার আসামিসহ গ্রেফতার তিন দুপচাঁচিয়ায় ভোক্তা অধিকার আইনে ধাপহাটে অতিরিক্ত গরুর খাজনা আদায়ে জরিমানা দুপচাঁচিয়ায় প্রতিবন্ধীদের মোবাইল থেরাপি ক্যাম্পেইন দুপচাঁচিয়ায় নকল মূর্তি বিক্রয়ের চেষ্টায় একজন আটক দুপচাঁচিয়ায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনাঃ জরিমানা আদায় দুপচাঁচিয়ায় সিসি ক্যামেরার উদ্বোধন দুপচাঁচিয়ায় ৫ জুয়াড়ী আটক দুপচাঁচিয়া চৌমুহানীতে মাদক সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ ইভটিজিং প্রতিরোধে সভা দুপচাঁচিয়ায় আনসার ভিডিপির বাসভবন নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন

তিন বছরেও কাজ শেষ হয়নি দুপচাঁচিয়ার ধাপহাট-কালিতলা সড়কে জনভোগান্তি

  • আপডেট টাইম শুক্রবার, ১১ জুন, ২০২১, ৬.২০ পিএম
  • ৫৯ জন দেখেছেন

ফিরোজ হোসেন নিজস্ব প্রতিনিধি :
দুপচাঁচিয়া উপজেলার ধাপহাট-কালিতলা সড়কের কার্পেটিং কাজের নির্ধারিত সময় শেষ হয়ে প্রায় তিন বছর পার হলেও এখনও কাজটি শেষ হয়নি। ঠিকাদার সড়কটিতে মাটি কেটে দীর্ঘদিন যাবত খোয়া বিছিয়ে রাখায় খোয়াগুলো উঠে খানাখন্দকের সৃষ্টি হয়েছে। এই বর্ষা মৌসুমে ওই খানাখন্দক গুলোতে পানি জমে জনদুর্ভোগ বাড়িয়েছে।
জানা গেছে, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর বগুড়া ২০১৭-১৮ অর্থবছরের রাজশাহী বিভাগীয় প্রকল্পের আওতায় প্রায় তিন কোটি টাকা ব্যয়ে দুপচাঁচিয়া উপজেলার গুনাহার থেকে ফুলতলা (দাসরাহাট) পর্যন্ত ও ধাপহাট থেকে কালিতলা সড়কটি কার্পেটিং দ্বারা উনśয়নের জন্য দরপত্র আহźান করা হয়। মেসার্স সুমন ইন্টারপ্রাইজ এর স্বত্বাধিকারী আব্দুর রহমান মন্টু কাজটির ঠিকাদার নির্বাচিত হন। গত ৩০ মে ২০১৯ প্রকল্পটি বাস্তবায়নের নির্ধারিত সময়সীমা ছিলো। প্রায় দুই বছর পূর্বে ২০১৮ সালের ১৪ই অক্টোবর নির্বাচিত ঠিকাদার ধাপহাট-কালিতলা সড়কটির কার্পেটিং কাজ শুরু করার লক্ষ্যে প্রাথমিক ভাবে ইট তুলে নেয় এবং উপরিভাগের মাটি কেঁটে বালু ভরাট করে। মাঝপথে কাজটি ফেলে রেখে চলে যায়। দীর্ঘ প্রায় ১ বছর ১০ মাস সড়কটি ফেলে রাখায় বিভিনś স্থানে খানা খন্দকের সৃষ্টি হয়। স্থানীয় জনগণের চাপে গত বছর রাস্তাটির উপর ইটের খোয়া বিছিয়ে দেয়। এর পর থেকে কাজটি বন্ধ। দীর্ঘদিন কাজ না হওয়ায় খোয়াগুলো উঠে গেছে বিভিনś স্থানে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। অনেক স্থানের খোয়া আর রাস্তার মাটি মিশে কর্দমাক্ত অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এই বর্ষা মৌসুমে একটু বৃষ্টি নামলেই গর্তগুলো পানিতে ভড়ে কর্দমাক্ত হয়ে থাকছে। গত তিন বছর যাবত এই বর্ষা মৌসুমে আটগ্রাম বেলহালী সহ আশেপাশের আরো ৬ থেকে ৭ টি গ্রামের মানুষ চলাচলে চরম দূর্ভোগে পড়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে সড়কটির অবস্থা করুণ। প্রায় এক কিলোমিটার সড়কটির খানা খন্দকে ভড়া গর্তে পানি জমে কর্দামাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। গ্রামের মানুষজন চলাচলের সুবিধার্থে রাস্তার এজিং এর ইটগুলো তুলে রাস্তায় বিছিয়ে যাতায়াত করার চেষ্টা করছে। এরই মাঝে সড়কের পার্শ্বে দিয়ে ভটভটি, অটো ভ্যান সহ এলাকাবাসী বহু কষ্টে চলাচল করছে। এ ব্যাপারে দূর্ভোগের শিকার আটগ্রাম বেলহালী গ্রামের রেজাউল করিম, ইউনুস আলী ফকির, খোরশেদ আলম, খোকন সরদার সহ অনেকেই জানান, এইচবিবি এই সড়কটি দিয়ে এলাকাবাসী বর্ষা মৌসুমেও বেশ ভালোভাবে চলাচল করতো। কার্পেটিং এর জন্য ইটগুলো তুলে নেওয়ায় ঠিকাদার এলাকাবাসীকে দূর্ভোগে ফেলেছে। খানা খন্দকে ভড়া সড়কটি চলাচলে এলাকাবাসী চরম ভোগান্তিতে পড়েছে। স্থানীয় চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শাহ্জাহান আালী জানান, ঠিকাদারের উদাসীনতা ও খামখেয়ালীর কারণে প্রায় ৭টি গ্রামের মানুষকে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা প্রকৌশলীকে একাধিকবার অভিযোগ করেও কোনো লাভ হয়নি। গতকাল বৃহস্পতিবার উপজেলা প্রকৌশলী রবিউল আলম জানান, নির্বাচিত ঠিকাদারকে নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ করার জন্য বহুবার লিখিত পত্র সহ মৌখিক ভাবে তাগাদা প্রদান করেছেন। এর পরেও ঠিকাদার গুড়িমুশি করে কাজটি করা থেকে বিরতই থাকেন। কর্তৃপক্ষের নিকট তার কাজের দরপত্র বাতিলের সুপারিশ সহ পত্র প্রেরণ করেন। ঠিকাদার পুনরায় কাজের সময়সীমা বৃদ্ধির জন্য আবেদন করেন। আগামী ৩০ জুন তার কাজ বাস্তবায়নের শেষ তারিখ রয়েছে। নির্ধারিত এই সময়ের মাঝেও কাজ করতে পারবেন কি না তার আশংকা দেখা দিয়েছে। এ বিষয়ে নির্বাচিত ঠিকাদার মেসার্স সুমন ইন্টারপ্রাইজ এর স্বত্বাধিকারী আব্দুর রহমান মন্টুর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, ধাপহাট-কালিতলা সড়কটির কার্পেটিং দ্বারা উনśয়ন প্রকল্পের অর্থ বরাদ্দ না থাকায় কাজ করতে পারছেন না। ইতিমধ্যেই তিনি এই প্রকল্পের দু’টি সড়কে প্রায় দেড় কোটি টাকার কাজ করেছেন। প্রয়োজনীয় অর্থের অভাবে বাঁকি কাজ করতে পারছেন না। জনদূর্ভোগ লাঘবে অল্প দিনের মধ্যেই ধাপহাট-কালিতলা সড়কটির কাজ নিজ অর্থায়নেই বাস্তবায়ন করবেন বলেও জানান।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরী আরো খবর...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themes046465464631
© All rights reserved © 2018-2021 dupchanchianews
Developed by Dupchanchianews.com
error: Content is protected !!